ইমেইল মার্কেটিং কিভাবে করবেন? বিশ্বে ইমেইল ব্যাবহারকারি ৩.৮ বিলিয়ন ২০১৮

0
9
ইমেইল মার্কেটিং কি?

ইমেইল মার্কেটিং কিভাবে করবেন?

lifewire.com এর এক রিপোর্টে বলা হয় ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তে ইমেইল ব্যাবহারকারির স্যংখা প্রায় ৩.৮ বিলিয়ন ও ২০১৯ সালে তা ৩.৯ বিলিয়ন , এবং ২০২২ ব্যবহারকরির সংখ্যা হবে ৪.২ বিলিয়ন ।যারা প্রতিদিন প্রায় ২৭৯ বিলিয়ন মেইল সেন্ড করে।
একজন মার্কেটার মাত্রই জানেন এটা কত বড় মার্কেট। তাই আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে
ক্যারিয়ার গড়তে চান ইমেইল মার্কেটিং শেখাটা হবে অত্যন্ত বুদ্ধিমানের কাজ।

ইমেইল মার্কেটিং কি?

ইমেইল মার্কেটিং হচ্ছে একটি অনলাইন মার্কেটিং পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনি আপনার পন্যের এবং সেবার প্রচার করতে করতে
পারবেন এবং আপনার সাইটের প্রচার করতে পারবেন। বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের
ছোট বড় অসংখ্য প্রতিষ্ঠান এই পদ্ধতির মাধ্যমে তাদের আয় বৃদ্ধি করছে।বিজ্ঞাপনের জগতে সবচেয়ে সহজ, সস্তা এবং দ্রুত উপায়ে আপনার পণ্যর বিজ্ঞাপন ভোক্তাদের কাছে পৌঁছানোর সবচেয়ে কার্যকারি পদ্ধতি হল ইমেইল মার্কেটিং। আপনি কি বিক্রি করছেন সেটা কোন বিষয় নয়।
এক ক্লিকেই আপনার সার্ভিসটি সম্ভাব্য হাজার হাজার গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দিতে পারবেন।

ইমেইল মার্কেটিং কি?

কেন করবেন ইমেইল মার্কেটিং?

মানুষ অফিসে থাকুক, বাসায় থাকুক অথবা ভ্রমণরত অবস্থায় থাকুক সে মেইল পড়তে পারে। সুতরাং আপনার বার্তাটি খুব সহজেই পাঠাতে পারবেন আপনার গ্রাহকদের কাছে। কিছু পরিসংখান দেখলেই আমরা বুঝতে পারবো কেন আমরা ইমেইল মার্কেটিংকে এত গুরুপ্ত দিব।

১. সোশ্যাল মিডিয়ার মাদ্ধমে যেখানে মানুষ ০.৫৯% পন্য কিনেছে সেখানে ইমেইল মার্কেটিং এর মাদ্ধমে কিনেছে ৪.২৪%।
২. ফেইসবুক বা টুইটারের চেয়ে নতুন গ্রাহকদের জন্য ইমেইল মার্কেটিং ৪০ গুণ বেশি কার্যকর।
৩. ৭২% মানুষ প্রমোশনাল অফার গুলো ইমেইলে পেতে পছন্দ করে, যেখানে সোশ্যাল মিডিয়াতে মানুষের বিজ্ঞাপন পছন্দের হার মাত্র ১৭%।
৪. একটি টুইটার ক্যাম্পেইনের থেকে একটি ইমেইল ক্যাম্পেইনে ৬ গুণ বেশী ক্লিক পড়ে।
৫. রিটার্ন অব ইনভেস্টমেন্ট ৪১% (প্রতি ১ ডলার ব্যয়ে)

Adestra পরিচালিত এক জরিপে দেখা যায় ৮৫% কোম্পানি বলে ২০১৯ সালের মধ্য তারা সম্পুর্নরুপে ইমেইল মার্কেটং নির্ভর হয়ে যেতে
পারে বলে আশা করা যায়। ৮৯% মার্কেটার মনে করে ব্যবসার জন্য গ্রাহক পাবার প্রাথমিক উপায় হল ইমেইল মার্কেটিং।
৭৬% কাস্টমার বলে যে তারা ইমেইলে পাওয়া তথ্য বা অফারের মাদ্ধমে কেনাকাটা করেন। আর পশ্চিমা বিশ্বের ৯৭% ব্যবসা
প্রতিষ্ঠান তাদের গ্রাহক পায় ইমেইল মার্কেটিং থেকে।

lifewire.com এর এক রিপোর্টে বলা হয় ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তে ইমেইল ব্যাবহারকারির স্যংখা প্রায় ৩.৮ বিলিয়ন ও ২০১৯ সালে তা ৩.৯ বিলিয়ন , এবং ২০২২ ব্যবহারকরির সংখ্যা হবে ৪.২ বিলিয়ন ।যারা প্রতিদিন প্রায় ২৭৯ বিলিয়ন মেইল সেন্ড করে।
একজন মার্কেটার মাত্রই জানেন এটা কত বড় মার্কেট। তাই আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে
ক্যারিয়ার গড়তে চান ইমেইল মার্কেটিং শেখাটা হবে অত্যন্ত বুদ্ধিমানের কাজ।

ইমেইল মার্কেটিং এর সুবিধাঃ<>

আগে ইমেইলকে শুধু যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ভাবা হতো কিন্তু বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে সাথে এর ও অনেক উন্নয়ন ঘটেছে।
বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ছোট বড় অসংখ্য প্রতিষ্ঠান তাদের পন্যের প্রচারের জন্য এবং তাদের বিভিন্ন সাইট এবং সেবা
প্রচারের জন্য ইমেইল মার্কেটিং করে থাকে । ইমেইল মার্কেটিং এর অনেক সুবিধা রয়েছে ।

নিচে ইমেইল মার্কেটিং এর সুবিধা নিয়ে আলোচনা করা হলঃ-
১. ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে অল্প পরিশ্রমে এবং অল্প সময়ে অর্থ উপার্জন করা যায়।
২. ইমেইল মার্কেটিং এ ওয়েব ডিজাইন এর জন্য বেশি অর্থের দরকার হয়না।
৩. ইমেইল মার্কেটিং ব্যাবসার জন্য আপনাকে উচ্চ পরিমানের হোস্টিং ফি খরচ করতে হবেনা।
৪. ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে নিজের সাইটের প্রচার, সেবা বিক্রি, অন্যের পণ্য বিক্রি এবং পন্যের বিক্রয়কৃত কমিশন ইত্যাদি সহ অনেক ভাবে আয় করতে পারবেন ।
৫. ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে অন্য প্রতিষ্ঠানকে রেফার বা তাদের জন্য রিভিউ লিখে পূর্বেই সেই প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অর্থ আয় করতে পারা যায় ।

 

কিভাবে করবেন ইমেইল মার্কেটিং?

ইমেইল মার্কেটিং করার জন্য প্রথমেই আপনার লাগবে মেইল লিস্ট। তো কাজটি আপনি করতে পারেন গ্রাহকদের মেইল কিনে ( এখান থেকে ইমেইল লিস্ট কিনতে পারেন ) অথবা নিজেই আপনার সার্ভিস নিতে আগ্রহী এমন গ্রাহকের মেইল সংগ্রহ করতে পারেন। নিচের ধারাবাহিক পদ্ধতি অনুসরণ করে আপনিও পারেন ইমেইল মার্কেটিং করতে।

. আপনার লক্ষ্য ঠিক করুন

প্রথমেই ঠিক করুন আপনি কি করতে চান? আপনি কি আপনার পণ্যর বিক্রি বাড়াতে চান? আপনার ব্রান্ড সম্পর্কে মানুষকে জানাতে চান? নাকি আপনার ওয়েবসাইটে ভিজিটর আনতে চান?

. ইমেইল মার্কেটিং প্রভাইডার নির্বাচন করুন

আপনি কোন ইমেইল ক্লায়েন্ট থেকে হাজার হাজার মেইল পাঠাতে পারবেন না। তাই আপনাকে কোন ইমেইল মার্কেটিং প্রভাইডারের সাহায্য নিতে হবে। Mailchimp,  AWeber, Getresponse এগুলোর সাহায্য নিতে পারেন।

. শুরু করুন লিস্ট বিল্ডিং

লিস্ট বিল্ডের সময় নিচের বিষয় গুলো খেয়াল রাখুন

  • গ্রাহককে বলুন মেইলটি দিলে সে কি সুবিধা পাবে।
  • আপনি তাকে স্প্যাম করবেন না।
  • আপনি কতবার তাকে মেইল পাঠাবেন।
  • আপনি তাকে কি কি ডিস্কাউন্ট দিবেন।
  • তার মেইলটি আপনার কাছে নিরাপদ।

. ইমেইল সাবজেক্ট এবং টেম্পলেট

মেইলে আর্কষনীয় সাবজেক্ট দিন। প্রয়োজন হলে ২০ মিনিট সময় নিন সাবজেক্ট লিখতে এবং রিসার্চ করুন গ্রাহক আসলেই কি ধরনের অফার নিতে চায়। কারন গ্রাহক দুই সেকেন্ডেই সিদ্ধান্ত নিবে সে আপনার মেইলটি খুলবে কি খুলবে না। একটি ভাল টেম্পলেট বাছাই করুন এবং সেখানে আপনার অফার সম্পর্কে কিছু তথ্য দিন।

. কতবার মেইল পাঠাতে চান তা নির্বাচন করুন

আপনি কি প্রতিদিন , সাপ্তাহিক নাকি মাসে একবার মেইল পাঠাতে চান তা নির্বাচন করুন।

. পর্যবেক্ষন করুন

এই ধাপেই আপনার আসল কাজগুলো কারতে হবে। এখানে দেখতে হবে আপনার মেইলের সাবজেক্ট ঠিক আছে কিনা, মেইল পাঠানোর টাইমিং, ছবি অথবা ছবি ছাড়া মেইল, মেইল কি ইনবক্সে ধুকছে নাকি স্প্যামে যাচ্ছে। এখান থেকেই বুঝতে পারবেন আপনার গ্রাহকরা মেইল কি ফ্রিকোয়েন্সিতে পেতে চাচ্ছে।  কি কি ভুল হচ্ছে সেগুলো সংশোধন করুন।

. মেইল কালেকশন চালু রাখুন

মার্কেটিং একটি চলমান প্রক্রিয়া তাই আপনাকে পুরাতন গ্রাহকের সাথে সাথে নতুন গ্রাহকের দিকেও মনযোগ দিতে হবে। তাই ল্যান্ডিং পেজ, সার্ভে টুল, পপ আপ প্লাগিন, ফেসবুক ইত্যাদি মাধ্যম ব্যবহার করে মেইল সংগ্রহ করুন।

 

LEAVE A REPLY