গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায়।

0
2

এখন আপনি চাইলেই এডসেন্স একাউন্ট এপ্রুভ পেতে পারেন। আগে একটা সময় গুগল বাংলা ব্লগে এডসেন্স এপ্রুভ করত না।
কিন্তু গত ২বছর যাবৎ এপ্রুভ করছে। এটি আমাদের বাঙ্গালীদের জন্য আসলেই অনেক বড় সুখবর।

যারা অনলাইন থেকে আয় করতে চায় বিশেষ করে ওয়েব সাইট থেকে। তারা সবাই খুবই চিন্তা করে কিভাবে খুব সহজে গুগল এডসেন্স পাব।
তো গুগল এডসেন্স পাবার জন্য কি কি করতে হবে।

গুগল এডসেন্স কয় ধরনের? গুগল এডসেন্স একাউন্ট হলো দুই ধরনের ।
১ . হোস্টেড একাউন্ট
২ . নন-হোস্টেড একাউন্ট

হোস্টেড এডসেন্স একাউন্ট হলো:

হোস্টেড একাউন্ট হচ্ছে শধু মাত্র ইউটিউব এবং ব্লগস্পট এর জন্য। হোস্টড একাউন্টের এড আপনি আপনার ব্লগ সাইটে ব্যবহার করতে পারবেন না।

নন-হোস্টেড এডসেন্স একাউন্ট হলো:

নন হোস্টেড একাউন্টের এড আপনি আপনার ওয়েব সাইট কিংবা চাইলে আপনি যেকোন জায়গায় ব্যবহার করতে পারবেন।

এটা পাওয়ার উপায় গুলো নিয়ে নিচে বিস্তারিত আলোচলা করা হলো:
বাংলা ব্লগে এডসেন্স পাওয়ার শর্তসমূহ কি কি?

আপনার যদি  একটা এডসেন্স একাউন্ট থাকে তাহলে সে এডসেন্স থেকে আপনার ওয়েব সাইট Approve করে নিতে হবে।
যদি আপনার এডসেন্স আপনার ওয়েব সাইট অনুমোধন করে তাহলে আপনি এডসেন্স থেকে কোড নিয়ে আপনার ওয়েব সাইট বসাতে হবে ।


যখন কোন ভিজিটর আপনার ওয়েব সাইট ভিজিট করতে আসবে তখন আপনার ওয়েব সাইটে বিভিন্ন কোম্পানির এড শো করবে ।
যদি এড শো করে তাহলে এড ভিউ এবং ভিজিটর যদি এডে ক্লিক করে ।এড ভিউ এবং এড ক্লিক এর উপর ভিত্তি করে গুগল আপনাকে টাকা দিবে।

 

১. যদি আপনার ভাল মানের একটা ওয়েব সাইট থাকে তাহলে সেই সাইটিকে কাস্টম ডোমেইন (.com, .net, .org, .bd) ইত্যাদিতে ট্রান্সফার করে নিতে হবে।ফ্রি সাইট ব্লগার বা ওয়ার্ডপ্রেস সাব ডোমাইন দিয়ে হবে না। অনেক ফ্রি ডোমেইন পাবেন তা থাকলে হবে না কারন ফ্রি ডোমেইন আজ অথবা আগামীকাল বন্ধ হয়ে যাবে।

২.ওয়েব সাইটের ডোমেইন এর বয়স যেন কমপক্ষে ২ মাস হয়। আপনি ডোমেইন কিনার পর আপনি ৩০-৩৫ টি পোস্ট করে তা সাজিয়ে নিবেন।
প্রতিটি আর্টিকেল ইনডেক্স হতে ৪-৫ দিন সময় লাগে, সুতরা আপনার ব্লগের ৩০টা আর্টিকেল ইন্ডেক্সিং হওয়ার পর আবেদন করা ভালো।
তাছাড়া কোন কাজ তাড়াহুড়া করে করবেন না তাহলে হয়তো রিস্ক থাকতে পারে।

৩. যদি আপনার ভাল একটা সাইট থাকে তাহলে সেই সাইটে ইউনিক ৩০ থেকে ৩৫ টা আর্টিকেল থাকতে হবে।
যদি আপনার ৩০-৩৫ টা আর্টিকেল থাকে তাহলে আপনার ওয়েব সাইট ভাল করে সাজিয়ে নিবেন।
আপনাদের আর্টিকেল গুলো যেন ২৫০ থেক ৩৫০ ওয়ার্ড এর হয়। কোন রকম কপিরাইট কন্টেন্ট যেন না থাকে আপনার সাইটে।

৪. ব্লগে হোম,এবাউট,কনট্রাক/প্রাইভেসি পলিসি এই তিনটি অপশন থাকতে হবে। আপনার ওয়েব সাইট দেখতে প্রফেশনাল দেখা।

৫. রেগুলার ভাল ভাল পোস্ট করবেন।
এডসেন্স Approved হওয়ার পর যদি আপনি নিয়মিত পোস্ট না করেন তাহলে এডসেন্স সাসপেন্ড হয়ে যেতে পারে।

৬. আপনার ওয়েব সাইটি গুগল ওয়েবমাস্টার এবং গুগল এনালাইটিক্সে এড করে নিবেন।
তাছাড়া ওয়েবমাস্টারে সাইটম্যাপে সাবমিট করে নিবেন।

৭. আপনার সাইটে যেন অন্য কোন নেটওয়ার্কের এড কোড যেন ইউজ না করেন।
যদি থাকে তাহলে এডসেন্স Approved হওয়ার পর , সেই এড কোড রিভুম করে দিবেন।

৮. আপনার সাইটের জন্য ভাল করে কয়েক দিন SEO করবেন।
যদি ভাল ভিজিটর আসা শুরু করে তাহলে আপনার ব্লগ এর পোস্টগুলো এটোমেটি গুগলে ইনডেক্স হওয়া শুরু করবে।

৯. ফেইসবুক/উইকিপিডিয়া থেকে কপি করা পোস্টের ৮০% আগে অন্য কোন সাইটে ইন্ডেক্সিং করা থাকে। সুতরা ফেইসবুক থেকে কপি করে পোস্ট দিয়ে সেটাকে আপনি ইউনিক পোস্ট বলতে পারেন না।

১০. ব্লগে এডসেন্স দেয়া হয় কন্টেন্ট এর উপর,ভিজিটরের উপর না। আপনার কোন ভিজিটর না আসলেও আপনি এডসেন্স পাবেন। ইউনিক কন্টেন্ট থাকলেই চলবে।

LEAVE A REPLY